আজ থেকে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার

আজ থেকে বন্ধ হয়ে যাচ্ছে মাইক্রোসফটের প্রথম দিকের ইন্টারনেট ব্রাউজের ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার । আজ মধ্যরাত থেকে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার  অফিসিয়ালি বন্ধের খবর জানা যায়। এরই মধ্যে দিয়ে 27 বছরের ব্রাউজিং জীবনের ইতি ঘটছে মাইক্রোসফট এক্সপ্লোরারের

1995 সালে প্রথম দিককার একটি ইন্টারনেট ব্রাউজার হিসাবে যাত্রা শুরু করে মাইক্রোসফট ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার। আজ রাতে এ নিউজ প্রকাশের পর থেকে নেট দুনিয়া মেতেছে নস্টালজিয়ায়। অনেকের ইন্টারনেটের হাতে খড়ি এই ইন্টারনেট এক্সপ্লোরারের মাধ্যমেই। 

ইন্টারনেট অ্যাকসেস নেওয়ার প্রথম দিককার একটি ব্রাউজার হচ্ছে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার। স্বাভাবিক ভাবেই একজন টেক লাভারের কাছে এটা একটা স্মৃতি  হয়ে থাকবে। আর তাই যাঁরা প্রথম দিকে এই ইন্টারনেট ব্রাউজারটি ব্যবহার করত তাঁদের কাছে ব্যাপারটি মেনে নেওয়া কিছুটা কঠিন। যদিও ইতিমধ্যেই আমরা প্রায় সবাই ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্রাউজার থেকে অন্য ব্রাউজার শিফট হয়ে গেছি। কিন্তু পূর্বে সেই স্মৃতি বিজড়িত ব্রাউজ়ার কিন্তু আমাদের মনে এক ছোট্ট যায়গা করে নিয়েছিলো। 

1995 সালে যখন ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্রাউজারটি বাজারে বিনামূল্যে ছাড়া হয়। ঠিক তখন থেকেই কিন্তু জনপ্রিয়তা হু হু করে বাড়তে থাকে। যদিও এর পরে গুগল ক্রোম, মোজিলা ফায়ারফক্স, মাইক্রোসফট এজ, ব্রেভ ব্রাউজার, অপেরা মিনির মতো অন্যান্য ইন্টারনেট ব্রাউজার গুলো বিনামূল্যে বাজারে আসতে থাকলে বেশ কিছুটা পিছিয়ে পড়ে ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার। 

কিন্তু তারপরও যারা প্রথম দিকে মানে ১৯৯৫ থেকে ২০০০ সালের দিকে কম্পিউটার ব্যাবহার করতো তাদের কাছে এটা কিন্তু একটা বিষাদের ব্যাপার স্যাপার।  আর তাই পুরা ইন্টারনেট জুড়ে নেটিজনরা এখন ভাসছে নস্টালজিয়ায়। আপনার কি ইন্টারনেট একপ্লোরার ব্রাউজার নিয়ে মজার কোন স্মৃতি আছে ? যদি থাকে কমেন্ট করে জানাবেন কিন্তু।

Internet Explorer is dead

এই মুহূর্তে কিন্তু অনেকেই ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্রাউজার থেকে অন্য ব্রাউজার শিফট করবে। ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার বন্ধ হয়ে যাবে এমন একটি খবর প্রকাশিত হয়েছিল বিগত বছরেই, তখন থেকেই কিন্তু অনেকে বুঝে নিয়েছলো যে এখন মুভ অন করতে হবে।

কিন্তু যারা এখনও পর্যন্ত ব্রাউজারটি ব্যবহার করছিল এবং এই মুহূর্তের জন্য একদমই প্রস্তুত ছিল না তারা কিন্তু সত্যিই shocked। যদিও এখন ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্রাউজারের টি ওপেন করলেই এটি আপনাকে মাইক্রোসফট এজ ব্রাউজারটি তে রিডাইরেক্ট করে দেবে।

১৫ জুনের পরেও ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্যবহার করা যাবে?

মাইক্রোসফটের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে যে “এই আপডেট বাজারের উইন্ডোজ ১০ এলটিএসসি বা সার্ভার ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ১১ ডেস্কটপ অ্যাপ্লিকেশনকে প্রভাবিত করবে না, এটি মূলত সফ্টওয়্যারের এন্টারপ্রাইজ ব্যবহারকারীদের জন্য প্রযোজ্য, এবং বেশিরভাগ ব্যাবহারকারিরাই এরপর থেকে অ্যাপ্লিকেশনটি  ব্যবহার করতে পারবেন না। 

যাইহোক, মাইক্রোসফ্ট ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার কে আমাদের থেকে নিয়ে গেলেও আমাদের জন্য কিন্তু MS EDGE browser টি ওপেন রেখেছে যেটি কিন্তু সত্যিই দুর্দান্ত। 

Internet Explorer ব্যাবহার বন্ধের পূর্বে আপনার যেগুলা খেয়াল করা উচিত

আমাদের মধ্যে এখনও যারা ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্রাউজারটি ব্যবহার করছিলেন। তারা কিন্তু ব্রাউজারটিতে বুকমার্ক করা ডাটাগুলো নিয়ে প্রবলেমে পড়তে পারেন। কারণ ব্রাউজারটি এখন থেকে বন্ধ করা হয়েছে। তাই কোনো ব্যবহারকারীর ব্রাউজারটি তে কোনও ধরনের ডাটা এক্সেস করতে পারবে না। 

মাইক্রোসফট এজ ব্যবহার করে আপনি কিন্তু খুব সহজেই সমস্যা থেকে পরিত্রাণ পেতে পারেন। আপনি যদি একজন ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ব্রাউজার ইউজার হয়ে থাকেন এবং আপনার ব্রাউজারের ডেটাগুলো অ্যাকসেস নিতে চান তাহলে Microsoft Edge সেটিংস মেনুতে প্রবেশ করতে হবে,

প্রোফাইলে ক্লিক করুন এবং “ব্রাউজার ডেটা ইম্পোরট” সিলেক্ট করুন। তারপরে “মাইক্রোসফ্ট ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার” নির্বাচন করে আপনার ডাটা গুলা আপনি এজ ব্রাউজারে ইম্পোরট করতে পারেন খুব সহজেই। 

আপনি যদি মাইক্রোসফ্ট এজ ব্যবহার করতে না চান তবে অন্যান্য অনেক ব্রাউজারও বুকমার্ক Data ইম্পোরট  করার সুবিধা দিয়ে থাকে। তাই আপনি খুব সহজেই আপনার ডাটা রিকভারি করতে পারেন।

Internet Explorer alternatives

Microsoft Edge 

Microsoft Edge browser open

ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার ছোট ভাই মানে এর উত্তরাধিকারী, মাইক্রোসফ্ট এজ উইন্ডোজ 10 এর বাজারে আসার পর থেকে উইন্ডোজের জন্য ডিফল্ট ব্রাউজার হিসাবে রয়েছে। যে কারণে, এটি উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেমের সাথে ব্যবহারের জন্য সবচেয়ে অপ্টিমাইজ করা হয়। 

এটি অন্যান্য ব্রাউজার থেকে ছোট, কিন্তু চমৎকার সুবিধা এবং ফিচার পাবেন আপনি এই ব্রাউজারে। আপনি উইন্ডোজ, লিনাক্স কিংবা ম্যাক যে ব্যাবহার কারি ই হন না কেনো এই ব্রাউজারটি ট্রাই করে দেখতে পারেন। আমি কিন্তু পার্সোনালি EDGE ব্রাউজারটি ব্যবহার করি। 

Google Chrome

Google Chrome logo and title

ইন্টারনেট দুনিয়ায় রাজ করছে টেক জায়েন্ট গুগল। আর সেই গুগলের ই প্রোডাক্ট গুগল ক্রোম, যেটা নরমালি Android ফোনের ডিফল্ট ব্রাউজার হিসাবে থাকে। আর এটি কিন্তু এখন পৃথিবীর সবথেকে জনপ্রিয় ব্রাউজারে পরিণত হয়েছে। কারণ গুগল ক্রোম এর অসাধারণ সব ফিচার এবং স্পিড সবমিলিয়ে ইউজার এক্সপিরিয়ান্স কিন্তু দুর্দান্ত দিয়ে থাকে। যদিও ব্রাউজারটা বেশ র‍্যাম হাংরি। আর আপনি যদি Android কিংবা Chromebook user হয়ে থাকেন তাহলে তো Google chorome এর সাধ খুব ভালভাবেই পেয়েছেন বলা চলে। আপনি যদি আপনার পিসি কিংবা ল্যাপটপে EDGE ব্যাবহার করতে না চান। তাহলে go for Google chrome. 

Firefox 

Firefox browser

মডার্ন ইন্টারনেট ব্রাউজারগুলি এর মধ্যে ফায়ারফক্স কিন্তু একটি অন্যতম ব্রাউজার। যদিও এটি ক্রোমিয়াম বেজ ইন্টারনেট ব্রাউজার নয়, কিন্তু তারপরও এর ইউজার ইন্টারফেস যথেষ্ট সিম্পল এবং মিনিমালিস্টিক। আপনি যদি ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার থেকে একটি সুন্দর ব্রাউজার চান অথবা অন্যান্য ব্রাউজারের পাশাপাশি।ব্যবহারের জন্য একটি ইন্টারনেট ব্রাউজার খুজে থাকেন তাহলে ফায়ারফক্স আপনার পছন্দের তালিকায় থাকতে পারে। ট্রাই করে দেখতে পারেন।

তো ইন্টারনেট এক্সপ্লোরার বন্ধ হয়ে যাবে শুনে আপনি কী ভাবছেন?কমেন্ট করে জানাবেন কিন্তু। আর উপরের ব্রাউজার গুলার ভেতর থেকে আপনার কাছে কোন ব্রাউজারটা বেস্ট মনে হয় এবং কেন সেটাও জানাতে পারেন। তো এই ছিল আজকের টেক নিউজ ভালো লাগলে শেয়ার করতে পারেন। ধন্যবাদ 🙂❤

Rate this post

Leave a Comment