20 থেকে 30 হাজার টাকার মধ্যে সেরা 5 ফোন

আসসালামুআলাইকুম আশা করি সবাই ভাল আছেন আজকে আমাদের আলোচোনার বিষয় হচ্ছে 20 হাজার টাকা থেকে 30 হাজার টাকার মধ্যে এই মুহূর্তে সেরা পাঁচটি মোবাইল এবং প্রত্যেকটি মোবাইল দিয়ে আপনার বেশ ভালো মানের ফটোগ্রাফি এবং ভিডিওগ্রাফি পাশাপাশি বেশ ভালো মানের গেমিংও করতে পারবেন । চলুন তাহলে দেরি না করে শুরু করা যাক –

Realme 8

Realme 8 phone pic

আমাদের লিস্টে থাকা নাম্বার ফাইভে যে মোবাইলটি রয়েছে সেটা হল Realme 8 । ২০২১ সালের সেরা ফোনে গুলার ভেতরে একটা, এবং ২২সালেও কিন্তু ফোনটি এখনো মার্কেটে ভালোভাবেই রাজ করে চলেছে। চলুন তাহলে মোবাইলের কনফিগারেশন নিয়ে একটু কথা বলা যাক –

মোবাইলটিতে রয়েছে 6.4ইঞ্চি সাইজের ফুল এসডি প্লাস সম্বলিত সুপার এমোলেড ডিসপ্লে । প্রসেসর হিসেবে রয়েছে Mediatek helio G-95। ফোনটির রেয়ার প্যানেলে রয়েছে 64 মেগাপিক্সেল এর কোয়াড ক্যামেরা সেটাপ। এবং ফন্ট প্যানেলে রয়েছে 16 মেগাপিক্সেল ক্যামেরা। ফোনটিতে Ram হিসাবে ব্যাবহার করা হয়েছে LPDDR4 ক্যাটাগরির এবং স্টোরেজ হল 128GB UFS 2.1 ক্যাটেগরির।

ফোনটিতে ব্যাটারি হিসাবে রয়েছে ৫০০০mah এর ম্যাসিভ ব্যাটারি এবং বক্সে থাকছে ৩০watt এর একটি ফার্স্ট চারজার। এই মুহুর্তে অল ওভার ওয়ার্ল্ড এর সব কিছুর দাম বেড়ে যায় কোন ফোনটা আপাতত বাড়িয়ে 24,990 টাকা করা হয়েছে বাট এটা পার্মানেন্ট না । কিছুদিন পর আসা করি সব স্বাভাবিক হলে দাম কিছুটা কমবে।

এই ফোনের ডিসপ্লে পারফরম্যান্স খুবই ভালো আপনার মাল্টিমিডিয়া কনজিউম করে অনেক ভালো লাগবে। আর গেমিং পারফমেন্স এর কথা যদি বলতে হয় তাহলে বলবো মিডিয়াটেক হেলিও G95 হিসেবে যথেষ্ট ভাল। এবং সেইসাথে মোবাইল ফটোগ্রাফি এবং ভিডিও পারফরম্যান্স কিন্তু খুবই ভালো এবং সবথেকে বড় কথা ফোনটির আউটলুক কিন্তু খুবই সুন্দর। আমি মনে করি আপনারা 20 25 হাজার টাকা বাজেট রয়েছে রিয়েলমির কোন ফোন নিতে চান, তারা ফোনটা কিনেন অথবা না কিনেন, রিয়েল মির এই ফোনটা অফিশিয়াল শোরুম হোক অথবা বাইরে যে কোন যায়গা হোক একবার হাতে নিয়ে ব্যাবহার করে দেখতে পারেন।আশা করি আপনাদের ভালো লাগবে।

Redmi Note 11 Pro 5G

আমাদের লিস্টে থাকা 4 যে ফোনটি রয়েছে সেটি হচ্ছে – Redmi Note 11 সিরিজের 11 Pro 5G মোবাইলটি ।

এটি একটি গ্লোবাল ভার্সনের স্মারটফোন । ওহ আর একটা ফোন এই নামে কিন্তু মার্কেটে আরো বেশ কিছু ফোন রয়েছে কিন্তু একটা জিনিস খেয়াল রাখবে সেটি হচ্ছে এই ফোনটিতে ব্যাবহার করা হয়েছে স্নাপড্রাগনের 695 প্রসেসর। তো এবার ফোনটি নিয়ে ফোনএর কনফিগ নিয়ে কথা বলা যাক চলুন ।

মোবাইলটিতে ডিসপ্লে হিসাবে ব্যাবহার করা হয়েছে 6.67 ইঞ্চি এর 120 হার্জ রিফ্রেস রেট সহ একটি এমোলেড প্যানেল। প্রসেসর হিসাবে রয়েছে স্নাপড্রাগনের 695 এর প্রসেসর এবং ফোনটির রেয়ার প্যানেলে রয়েছে 108mp এর ত্রিপল ক্যামেরা সেটাপ এবং সাথে ফোনটির ফ্রন্ট প্যানেলে রয়েছে 16mp এর একটি সেলফি ক্যামেরা।

মোবাইলটিতে Ram হিসাবে থাকছে 6GB LPDDR4x Category . এবং স্টোরেজ হল 128 GB UFS 2.2 ক্যাটাগরির । মোবাইলে ব্যাটারি হিসাবে থাকছে 5000mah এর বিগ ব্যাটারি এবং সেই সাথে ফোনটিকে চার্জ করার জন্য সাথে থাকছে 67 ওয়াটের ফাস্ট চারজার। এবং এই ফোনটি বাংলাদেশ মার্কেটে আনওফিশিয়ালি ৬/১২৮ জিবি ভ্যারিয়েন্টের দাম ২৫ থেক ২৬ হাজার টাকা এবং ৮/১২৮ জিবি ২৭ থেকে ২৮ হাজার টাকার মধ্যে।

এই ফোনটি আমাদের লিস্টে যে কারনে রেখেছি – এই ফোনটি কিন্তু বেশ জোস এবং অসাধারণ একটি ফোন স্পেশালি আপনি যদি একটু ফটোজেনিক হয়ে থাকেন বে ভিডিওগ্রাফি করেন তাহলে কিন্তু এটা এই দামে আপনার চয়েস এর ভেতর রাখতে পারেন। এবং পাশাপাশি এটার গেমিং পারফমেন্স ও কিন্তু যথেষ্ট ভালো । Snapdragon 695 এই প্রসেসরটিকে অনেকে Weak প্রসেসর বলে মনে করেন। কিন্তু এটা কিন্তু বেশ স্ট্রং একটি প্রসেসর ইভেন এটা snapdragon 750 এর কাছাকাছি । ওভারল সবদিকে বিবেচনা করলে ফোনটি হতে পারে আপনার পছন্দের একটি।

Xiaomi 11i


আজকের লিস্টের থাকা নাম্বার 3 তে যে স্মারটফোনটি রয়েছে সেটা হচ্ছে – xiaomi 11i মোবাইলটি . সেম এই ফোনটি রয়েছে Xiaomi 11i hyper charge নামে । হাইপার চার্জে শুধুমাত্র ১২০ ওয়াটের চারজার রয়েছে এবং ব্যাটারিটা কিছুটা কম রয়েছে। যাইহোক আমরা এখন ফোনটির কনফিগ নিয়ে কিছুটা আলোচনা করবো –

মোবাইলটিতে রয়েছে 5.7 ইঞ্চি সাইজের ১২০ হার্জ রিফ্রেস রেট সহ একটি এমোলেড প্যানেল ডিস্প্লে। প্রসেসর হিসাবে রয়েছে মিডিয়াটেকের ডাইমেন্সিটি 920 । রেয়ার প্যানেলে রয়েছে 108 mp এর ত্রিপল ক্যামেরা সেটাপ। এবং ফন্টে রয়েছে ১৬ মেগাপিক্সেলের সেলফি ক্যামেরা সেটাপ। এবং Ram হল LPDDR4x ক্যাটেগরির। এবং সেইসাথে ফোনটিতে স্টরেজ হিসাবে রয়েছে UFS 2.2 ক্যাটেগরির ১২৮ GB স্টোরেজ।

ফোনটিকে ইউজ করার জন্য ব্যাটারি হিসাবে থাকছে 5160mah এবং সাথে থাকছে 67wat এর চারজার। এই মোবাইলটি এবং এর আগে আমরা যে ফোনটি নিয়ে আলোচনা করছিলাম দুটি ফোন ই কিন্তু প্রায় সেম কনফিগের। ব্যাটারিতে এবং প্রসেসরে কিছুটা চেঞ্জ রয়েছে। তবে স্নাপড্রাগন 695 থেকে মিডিয়াটেক ডাইমেন্সিটি কিন্তু বেশ শক্তিশালী একটা প্রসেসর। তাই আপনার বিবেচনায় রাখবেন ।

আর এই ফোনটি আমাদএর লিস্টে রাখার মেইন কারন হচ্ছে। ফোনটির গেমিং পারফমেন্স অনেক জোস। মিডিয়াটেক ডাইমেন্সিটির প্রসেসর কিন্তু নরমালি বেশ হিট হয় কিন্তু এই প্রসেসর টা কিন্তু বেশ স্টেবল। এই প্রসেসর এর হিটিং ইস্যু কিন্তু খুবই কম। আপনারা চাইলে কিন্তু এই ফোনটাও আপনার পছন্দের তালিকায় এড করতে পারেন।

Xioami Poco F3

আমাদের লিস্টে থাকা নাম্বার 2 টে যে মোবাইল টি রয়েছে এটা অনেক শক্তিশালী একটা ফোন এটা চাইলে আমরা নাম্বার ওয়ানে রাখতে পারতাম বাট নাম্বার ওয়ানে যে ফোনটা রেখেছি সেটারও কিছু স্পেশাল কারণ রয়েছে যে কারনে আমরা সেটাকে নাম্বার ওয়ানে রেখেছি।

নাম্বার টু তে যে ফোনটি রয়েছে সেটি হচ্ছে Xioami Poco F3 যার আরেক নাম হল Redmi K40 এবং আরেকটি নাম হল MI11X । এবার চলুন ফোনটির কনফিগ নিয়ে আলোচনা করা যাক –

মোবাইলটিতে ডিসপ্লে হিসাবে ব্যাবহার করা হয়েছে 6.67 ইঞ্চি এর ১২০ হারজের একটি এমোলেড ফুল এইচডি প্লাস ডিসপ্লে। এবং প্রসেসর হিসাবে ব্যাবহার করা হয়েছে স্নাপড্রাগনের 870 এর একটি 5G প্রসেসর। ফোনটির রেয়ারে 48MP এর ট্রিপল ক্যামেরা সেটাপ এবং ফন্টে রয়েছে 20MP এর একটি সেলফি ক্যামেরা।

ফোনটিতে Ram হিসাবে ব্যাবহার করা হয়েছে 6GB LPDDR4X ক্যাটেগরির । এবং স্টোরেজ হিসাবে থাকছে TYPE: UFS 3.1 এর 128GB স্টোরেজ। ফোনটি ব্যাবহার করার জন্য ব্যটারি হিসাবে থাকছে 4520maAh এবং এই ব্যাটারিকে চার্জ করতে সাথে থাকছে 33watt এর ফার্স্ট চার্জার। এবং বর্তমান বাজারে ফোনটি আপনি 27k থেকে 30k এর ভেতরে পেয়ে যাবেন। অর্থাৎ 6/128Gb টার দাম ২৭হাজার টাকা এবং 8/128Gb টা ৩০ হাজারের ভেতরে আশা করি পেয়ে যাবেন।

আর সত্য কথা বলতে এই ফোনটির গেমিং পারফমেন্স কিন্তু দুর্দান্ত। এই প্রাইস রেঞ্জে একটি কিন্তু মারাত্মক শক্তিশালী একটি ফোন। তবে Poco F3, Redmi K40 এবং MI11x ফোনেগুলার ভেতরে আমি আপনাকে Poco F3টা রেকমান্ড করবো। পোকো এফ৩ ফোনটি অনেক ভাল এটার ইউজার রিভিও অনেক ভালো। তাই এটা নেওয়ার সাজেশন থাকবে।

Xiaomi 11 lite 5G NE

আমাদের লিস্ট থেকে নাম্বার ওয়ানে যে মোবাইলটা রয়েছে – এই ফোনটার আগে অনেক প্রাইস ছিল বাট এখন অনেক কমে গেছে এবং এই ফোনটা হল 2021 থেকে শুরু করে 2022 মানে এখনো পর্যন্ত পৃথবীর সবচাইতে স্টাইলিশ স্লিম এবং হালকা মোবাইল এবং এই ফোনটার নাম হল শাওমি এলিভেন লাইট ফাইভ-জি এনই (Xiaomi 11 lite 5G NE) মোবাইল।

Xiaomi 11 lite 5G NE pic

এই মোবাইলটার কনফিগ এবং অনান্য বিষয় নিয়ে চলুন কিছু জেনে নেওয়া যাক – ফোনটিতে রয়েছে 6.55 ইঞ্চি এর 90hrZ রিফ্রেস রেট সহ একটি এমোলেড প্যানেলের ডিসপ্লে। ফোন্টিরে প্রসেসর হিসাবে থাকছে স্নাপড্রাগণএর 778 প্রসেসর। এবং ক্যামেরা হিসাবে ফোনের রেয়ার প্যানেলে ব্যাবহার করা হয়্যেছ 64 মেগাপিক্সেল এর ত্রিপল ক্যামেরা সেটআপ। এবং ফন্টে রয়েছে একটি 20mp এর সেলফি শুটার।

ফোনটিতে Ram হিসাবে ব্যাবহার করা হয়েছে LPDDR4x ক্যাটেগরির 6GB Ram এবং স্টরেজ হিসাবে থাকছে – UFS 2.2 এর 128GB স্টরেজ। ফোনটিতে পাওয়া যাবে 4250mAh এর একটি ব্যাটারি এবং সাথে থাকছে ৩৩ ওয়াটের একটি ফার্স্ট চার্জার। এই ফোনটার গেমিং পারফরম্যান্স নির্দ্বিধায় খুবই ভালো। স্নাপড্রাগণ 778 বাজারের সেরা প্রসেসর গুলার মধ্যে একটি।

এটি বেশ স্ট্রং একটি প্রসেসর 20,30k প্রাইস রেঞ্জের ভেতরে। এই ফোনটির প্রাইস কিন্তু আগে অনেক বেশি ছিল এখন কমে গিয়েছে এবং আমি যে ফোনটা নিয়ে কথা বলতে কিন্তু আনঅফিসিয়াল ফোন । এই ফোনটার আরেকটা বিষয় হলো – প্রাইস 6GB টার দাম পঁচিশ ছাব্বিশ হাজার টাকা আর 8 জিবি 128gb প্রাইস হল 27 হাজার টাকার মধ্যে । মানে পুরোপুরি 28 হাজার টাকা আপনার লাগবেনা 25 থেকে 27 রোজার মধ্যে আপনার ফোন গুলো পেয়ে যাবেন।

আর সত্যি কথা বলতে ফোনটা ফটোগ্রাফির পারফরম্যান্স বলেন ভিডিও পারফমেন্স বলেন – খুবই ভালো । যে কারনে মূলত এই ফোনটি সিলেক্ট করেছি । এই ফোনটার দুর্বল দিকের একটা বিষয় হলো যে ফোনের চার্জ একটু কম থাকে বাট অনেক বেশি কম থাকেনা। আমার ব্যাটারি 4250 মিলি এম্পিয়ার দেখে ভাবতে পারিনি অনেক কম বুঝি। আসলে খুব কম না কারণ এটা অপটিমাইজেশন অনেক ভালো আর Snapdragon 778 6 ন্যানোমিটার Base প্রসেসর হওয়ার কারনে চার্জ ব্যাকআপ বেশি ভালো পাওয়া যায় । তাই আপনার বাজেট রেঞ্জে এই ফোনটি রাখতে পারেন নির্দ্বিধায়।

তো এই ছিলো আমাদের আজকের ব্লগ। এই ৫টি ফোনের মধ্যে আপনার সবচেয়ে কোনটি ভালোলেগেছে কমেন্ট করে জানাতে ভুলবেন না। Thanks ❤

all image credit : www.gsmarena.com

Rate this post

Leave a Comment